বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৯ জানুয়ারি ২০১৬

ভেটারিনারি ড্রাগ রেসিডিউ এনালাইসিস ডিভিশন

ভেটারিনারী ড্রাগ রেসিডিউ অ্যানালাইসিস বিভাগ

আমিষ জাতীয় খাদ্যের চাহদিা দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই চাহিদা মেটানোর জন্য আমিষ জাতীয় খাদ্যের বিশেষ করে প্রাণীজাত খাদ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি  অতীব প্রয়োজন। আবার, ভাল গুণসম্পন্ন চিংড়ি মাংস ইত্যাদি রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের সুযোগ আছে। খামারজাত প্রাণীর উৎপাদন বৃদ্ধি অথবা রোগ-বালাই থকেে রক্ষা করার জন্য কৃষকেরা গ্রোথ প্রমোটর, হরমোন, এণ্টবিায়োটকি ইত্যাদি অতমিাত্রায় ব্যবহার করে থাকে। অতমিাত্রায় ব্যবহৃত এসব বৈধ এবং অবধৈ ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশষ্টিাংশ প্রাণীজাত খাদ্যে বদ্যিমান থাকে। অপরদিকে এসব বেটারিনারি ড্রাগস যদি নির্দেশিত মাত্রায় ব্যবহার করা হয় এবং প্রাণীর শরীর থকেে বেরিয়ে যাওয়ার র্পূবইে প্রাণীজাত খাদ্য যেমন দুধ, মাংস, মধু ইত্যাদি সংগ্রহ করা হয়, তবে প্রাণীজাত খাদ্যে এসব ড্রাগসের অবশষ্টিাংশ থাকার সম্ভবনা থাকে। যদি এসব ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশষ্টিাংশ প্রতনিয়িত গ্রহণ করা হয়, এগুলো কডিনি ফেইলিউর, লভিার-সরিোসসি ইত্যাদি জটিল রোগ সৃষ্টি করে এবং এণ্টবিায়োটিক এর বিপরীতে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করে। অতএব, খাদ্য-শৃঙ্গলে উপস্থতি এসব ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশষ্টিাংশ যাতে খাদ্যে সংক্রমিত হতে না পারে তা মনিটর করা অতীব জরুরী, কারণ এগুলো প্রাণী ও ভোক্তার শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব সৃষ্টি করতে পারে এবং ভাল উৎপাদনের নিয়মিনীতি লঙ্ঘন করতে পারে।

                                                          Picture: Foods of Animal Origin

গবেষণা র্কমকাণ্ড
ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশষ্টিাংশ র্পযবক্ষেণ করা শুধু জনস্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট বিষয় নয় বরং এটি ব্যবসার একটি র্পূবর্শত, আমদানকিারক দেশসমূহ যাদের বাজারে প্রাণীজাত খাদ্যের অনুমতি আছে তাদের এটা বাধ্যতামূলক অথবা চাহদিামূলক। জনস্বাস্থের ঝুঁকি এবং আন্তর্জাতিক ব্যবসা উন্নীত করার কথা বিবেচনা করে বাংলাদেশ সরকার এবং আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা (আইএইএ) –এর সহায়তায় একটি টিসি প্রকল্পের (বিজিডি ৫০২৭, চক্র ২০০৯-২০১১) আওতায় বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমশিন খাদ্য ও বিকিরণ জীববজ্ঞিান ইনস্টিটিউট, সাভার, ঢাকাতে একটি ভেটারিনারি ড্রাগ রেসিডিউ ল্যাবরেটরি (ভিডিআরএল) স্থাপন করেছে। এই ল্যাবরেটরিটি প্রাণীজ খাদ্যে ভেটারিনারি ড্রাগ টেট্রাসাইক্লনি এর অবশিষ্টাংশের উপস্থিতি এবং পরিমাণ নির্নয়ের পদ্ধতি উদ্ভাবন ও যাচাইকরণ সম্পন্ন করেছে। আমাদের গবষেণার ক্ষেত্রসমূহ হল –
১। মাংস, চিংড়ি, দুধ, মধু ইত্যাদতিে ভেটারিনারি ড্রাগ টেট্রাসাইক্লিন এর অবশষ্টিাংশের উপস্থিতি এবং পরিমাণ নির্নয়।
২। প্রাণীজাত খাদ্যে কুইনোলোন, সালফোনামাইড, ক্লোরামফনেকিল, এবং অন্যান্য ভেটারিনারি ড্রাগস এর উপস্থিতি নির্ণয়ের পদ্ধতি উদ্ভাবন।
৩। প্রাণীজাত খাদ্যে ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশিষ্টাংশের উপস্থিতি এবং পরিমাণ নির্ণয়ের সহজলভ্য পদ্ধতি যাচাইকরণ।

 

শিক্ষা-বিষয়ক র্কাযক্রম/মানব সম্পদ উন্নয়ন

 

ভেটারিনারি  ড্রাগ রেসিডিউ অ্যানালাইসিস বিভাগ বিশ্ববিদ্যালয়ের র্কাযক্রমে সহায়তা দেয়ার জন্য বিভাগের গবেষণাগারকে প্রস্তুত করা হচ্ছে।

 

সেবা প্রদান

 

ভেটারিনারি  ড্রাগ রেসিডিউ অ্যানালাইসিস বিভাগ প্রাণীজাত খাদ্যে । ভেটারিনারি ড্রাগস এর অবশিষ্টাংশ নির্ণয়ে গ্রাহকদের সেবা প্রদানের জন্য বিভাগের গবেষণাগারকে প্রস্তুত করা হচ্ছে।

 

প্রধান সুবধিাসমূহ

 

১। এইচপিএলসি ১২৬০ সিষ্টেম (এজিলেন্ট টেকনোলজিস)
২। এলাইজা অ্যাপারাটাস (মাল্টিস্কান এফসি মাইক্রোপ্লেট রিডার বাই থার্ম সাইন্টিফিক, মাইক্রোপ্লেট ওয়াশার বাই থার্ম সাইন্টিফিক)
৩। এইচপিএলসি গ্রেড ওয়াটার পিউরিফিকেশান সিস্টেম (বায়োকো, জার্মানী)
৪। টেম্পারেচার নিয়ন্ত্রিত সেন্ত্রিফিউজ মেশিন (সিগমা, জার্মানী)
৫। হোমোজাইনিজার (আইকেএ, জার্মানী)
৬। ভ্যাকুম ম্যানিফোল্ড ইত্যাদি।

 


Share with :
Facebook Facebook